চাঁদে প্রথম পদার্পণকারী মানুষ হিসেবে নাম লেখান মার্কিন নভোচারী নিল আর্মস্ট্রং। সেই গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে চলচ্চিত্র ‘ফার্স্ট ম্যান’। এবার ছবিটি নিয়ে খোদ যুক্তরাষ্ট্রের লোকজনই বিতর্কে জড়িয়েছেন। তাঁরা ছবিটিকে যুক্তরাষ্ট্রবিরোধী বলে অভিযুক্ত করেছেন। যদিও এসব অভিযোগ নিল আর্মস্ট্রংয়ের পরিবারই আমলে নিচ্ছে না।

চাঁদে প্রথমবার অবতরণের সময় সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা ওড়ানো হয়। বিতর্ক উঠেছে, ছবিতে সেটা দেখানো হয়নি কেন? অভিযোগ তুলে পরিচালক ও অভিনেতাকে ‘বামপন্থী’ বলেও টুইট করেছেন কেউ কেউ। লা লা ল্যান্ড ছবির পরিচালক ডেমিয়েন শাজেল ছবিটির পরিচালক। নিলের চরিত্রে অভিনয় করেছেন একই ছবির অভিনেতা রায়ান গসলিং।

ছবিটির বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন নিল আর্মস্ট্রংয়ের দুই ছেলে। রিক ও মার্ক এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘আমরা মনে করি না এই ছবি একটুও যুক্তরাষ্ট্রবিরোধী, বরং তার উল্টোটাই মনে হয়েছে।’

অক্টোবরের আগে মুক্তি পাচ্ছে না ফার্স্ট ম্যান। কিন্তু পতাকা না ওড়ানোর বিষয়টি বেশ জোর দিয়েই আলোচিত হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে। রিপাবলিকান সিনেটর মার্কো রুবিও এই পতাকা বাদ দেওয়াকে ‘একেবারে পাগলামি’ বলে অভিহিত করেছেন। রুবিও টুইটারে লেখেন, ‘এই মিশনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের জনগণ টাকা দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রই ওই রকেট তৈরি করেছিল। যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তির মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের নভোচারীই ওই মিশনে গিয়েছিলেন।’

পতাকা বাদ দেওয়ার মাধ্যমে রাজনীতি করা হয়েছে-এমন অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়েছেন এই ছবির পরিচালক। কারণ, অন্য অনেক শটের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা ছিল। ছবির পরিচালক শাজেল ও আর্মস্ট্রংয়ের ছেলেরা বলেছেন, ছবির কেন্দ্রীয় ফোকাস ছিল একজন নভোচারীর ব্যক্তিগত জীবনের গল্প এবং চাঁদে পৌঁছাতে তিনি কী কী চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছিলেন তা নিয়ে। শাজেল আরও বলেন, ‘ছবিটি শুধু যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাস নয়, বরং মানবেতিহাসের অসাধারণ কৃতিত্বের গল্প নিয়ে।’

এই সপ্তাহের শুরুর দিকে ছবিটি ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবে দেখানো হয়। সেখানে ছবি সম্পর্কে ইতিবাচক রায় দিয়েছেন চলচ্চিত্র সমালোচকেরা। এবার এই ছবি হলিউডের অনেক পুরস্কার জিতে নেবে বলে ভাবা হচ্ছে। রয়টার্স।