দশম সংসদ নির্বাচনে ভোটের দিন রাজধানীতে সমাবেশের অনুমতি না পেয়ে পরদিন বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে বিএনপি। মহানগরেরর থানায় থানায় এই বিক্ষোভ হবে বলে জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

শুক্রবার সকালে দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন। আজ ঢাকায় কর্মসূচি না থাকলেও জেলায় জেলায় বিএনপির কালোপতাকা মিছিলের কর্মসূচি রয়েছে।

৫ জানুয়ারি নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ‍মূল্যায়ন পুরোপুরি বিপরীত। আওয়ামী লীগ একে গণতন্ত্রে বিজয় দিবস এবং বিএনপি গণতন্ত্র হত্যা দিবস হিসেবে পালন করে। আজ আওয়ামী লীগ রাজধানীর বনানী ও বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে সমাবেশ এবং বিজয় মিছিল করবে।

আর বিএনপি শুরুতে সোহরাওয়ার্দী ‍উদ্যানে সমাবেশে করতে পুলিশের অনুমতি চেয়েছিল। তবে ময়দানটি ধর্মভিত্তিক একটি দলকে বরাদ্দ দেয়া হয়। পরে বিএনপি নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে সমাবেশের অনুমতি চায়। কিন্তু পুলিশ জানায়, প্রকাশ্য সমাবেশ করতে করার অনুমতি দেয়া যাবে না। কর্মসূচি পালন করতে হলে ঘরোয়াভাবে পালন করতে হবে।

তবে বিএনপি ঘরোয়া কর্মসূচি পালনের পক্ষে নয়। দলের অবস্থান জানাতে বেলা ১১টায় নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন রিজভী। এ সময় তিনি শনিবারের কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

রিজভী বলেন, ‘৫ জানুয়ারির বিতর্কিত ও কলঙ্কিত নির্বাচনকে আড়াল করার জন্যই আজ বিএনপির কর্মসূচি পালনে বাধা দিতে পোড়ামাটি নীতি অবলম্বন করেছে সরকার।’

‘ভোটারবিহীন সেনিদেন নির্বাচন দেশে ও বিদেশে বিতর্কিত ও করঙ্কিত নির্বাচন হিসেবে গণ্য হয়েছে। কেউ তাদের সে নির্বাচনকে স্বীকৃতি দেয়নি বলেই তাদের এই লজ্জা ঢাকাতে ঢাকাতে বিএনপিসহ বিরোধী দলের কণ্ঠ রোধ করতে আজকের কর্মসূচি দুর্নীবিত কায়দায় বাঁধা দেয়া হয়েছে।’