চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনের তফসিল ঘোষিত হচ্ছে আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি। এই নির্বাচনটিও হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএমে)।

বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) নির্বাচন ভবনে কমিশনের বৈঠক শেষে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

সচিব জানান, চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন ও বগুড়া-১ এবং যশোর-৬ আসনের উপনির্বাচন নিয়ে আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি কমিশনে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। ওই দিন এসব নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে।

নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, জুন মাসে বর্ষাকাল শুরু হবে, বৃষ্টি থাকবে। ২০১০ সালের নির্বাচনেও নগরীর বাকলিয়া, চকবাজার, শুলকবহর, বাদুরতলা, মুরাদপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় বেশকিছু ভোটকেন্দ্রও পানিবন্দি হয়ে পড়েছিল। বর্ষা মৌসুমে নির্বাচনের সেই অভিজ্ঞতায় জুনের আগেই ভোটগ্রহণের পক্ষে কমিশনের অনেক কর্মকর্তা।

২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল ঢাকা মহানগরের উত্তর ও দক্ষিণ এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন হয়েছিল। ভোটগ্রহণের পর মে মাসেই ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিলরেরা দায়িত্ব নেন। কিন্তু চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন ও ৪১ ওয়ার্ডের কাউন্সিলরেরা দায়িত্ব নিয়ে প্রথম সভা করেছেন ২০১৫ সালের ৬ আগস্ট।

স্থানীয় সরকার নির্বাচন আইনে বলা আছে, নির্বাচিত পরিষদের দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রথম সভার পাঁচ বছর মেয়াদ পূরণের দিন থেকে ১৮০ দিন আগে পর্যন্ত যে কোনও দিন নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে। সে হিসেবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন হতে হবে ২০২০ সালের ৫ আগস্টের মধ্যে।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী সাবেক মেয়র এম মনজুর আলমকে হারিয়ে নির্বাচিত হন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন।