নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীর তালিকায় বর্তমান মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর নাম না থাকা প্রসঙ্গে কথা বলেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান যিনি মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য।

বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে আইনজীবী সমিতির বার্ষিক নির্বাচন উপলক্ষে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের প্যানেল পরিচিতি সভায় শামীম ওসমান বলেন, ‘বিশ্বাস করেন, আমি মনে করেছিলাম আইভীর নাম প্রস্তাবনায় আসবে কিন্তু মহানগর আওয়ামী লীগের সভায় কেউ আইভীর নাম প্রস্তাব করেনি।’

সিটি মেয়রকে উদ্দেশ করে এসময় তিনি আরও বলেন, ‘ছোট বোন (আইভী) এত দাম্ভিকতা, অহঙ্কার ভালো না, আমি তোমাকে দশবার অনুরোধ করেছিলাম মাফ চাও, ক্ষমা চাও। কিন্তু তুমি সেটা করো নাই। আর যেই গাছ ঝুলে পড়ে সেই গাছে ফল ধরে।’

শামীম ওসমান এ সময় আওয়ামী লীগের প্যানেলের পক্ষে সব আইনজীবীকে কাজ করারও অনুরোধ করেন।

এর আগে মঙ্গলবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় ৩ জনের নাম প্রস্তাব করা হয়। তারা হলেন মহানগরের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান ও বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ রশিদ।

অবশ্য  নাম না থাকা প্রসঙ্গে আইভী বলেছেন, ‘নাম না থাকা অস্বাভাবিক কিছু না। এটা হতেই পারে। তবে আমি অবশ্যই মনোনয়ন চাইবো। প্রধানমন্ত্রী এখন দেশের বাইরে আছেন। দেশে আসলেই দেখা করতে যাবো।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইভীর নাম না থাকা প্রসঙ্গে মঙ্গলবার মহানগরের বর্ধিত সভা শেষে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি চন্দন শীল বলেন, সভায় উপস্থিত একজন নেতাও আইভীর নাম প্রস্তাব না করায় তার নাম দেওয়ার সুযোগ নাই।

এর আগে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্য থেকে অন্তত ৩ সদস্যের প্যানেল তৈরি করে আগামী ২০ নভেম্বরের মধ্যে কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে পাঠানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে কেন্দ্র থেকে। ওই নির্দেশনায় বলা হয়, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদককে যৌথ স্বাক্ষরে প্যানেলভুক্ত প্রার্থীদের যোগ্যতা, নেতৃত্বের গুণাবলি ও জনপ্রিয়তার বিষয় উল্লেখ করে কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে পাঠাতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্যানেল হাতে পাওয়ার পর কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড বৈঠকে বসে একজনকে নারায়গঞ্জ সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনয়ন দেবে।