আগামী ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মহানগর আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত তালিকায় নিজের নাম না থাকাকে ‘স্বাভাবিক’ মনে করছেন বর্তমান মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী।আইভী বলেন,এটা অস্বাভাবিক কিছু না। এমনটা হতেই পারে। বহু জায়গায় এ রকম হয়েছে। যেহেতু আওয়ামী লীগ একটি বড় দল, এ দলের মধ্যে গ্রুপিং থাকতে পারে। সেটা কোনও ব্যাপার না। তবে দল যার বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবে সেটাই হবে। নাম পাঠায় নাই বলেই সবকিছু না।’

মঙ্গলবার মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় মেয়র প্রার্থী হিসেবে সভাপতি আনোয়ার হোসেনসহ আরও  দুইজনের নাম প্রস্তাব করে কেন্দ্রে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়। তারই পরদিন বুধবার (১৬ নভেম্বর) সকালে সিটি করপোরেশনের নগর ভবনে তিনি এই কথা বলেন।

দলের মনোনয়ন চাইবেন কিনা জানতে চাইলে আইভী বলেন, ‘অবশ্যই চাইবো। প্রধানমন্ত্রী এখন দেশের বাইরে আছেন। দেশে আসলেই দেখা করতে যাবো।’

এর আগে মঙ্গলবার বিকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় তিনজনের নাম প্রস্তাব করা হয়। তারা হলেন মহানগরের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান ও বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ রশিদ।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইভীর নাম না থাকা প্রসঙ্গে ওইদিন মহানগরের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি চন্দন শীল বলেন, ‘সভায় উপস্থিত একজন নেতাও আইভীর নাম প্রস্তাব না করায় তার নাম দেওয়ার সুযোগ নেই।’

এর আগে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের অন্তত তিন সদস্যের প্যানেল তৈরি করে আগামী ২০ নভেম্বরের মধ্যে কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে পাঠানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে দলের কেন্দ্র থেকে। ওই নির্দেশনায় বলা হয়, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদককে যৌথ স্বাক্ষরে প্যানেলভুক্ত প্রার্থীদের যোগ্যতা, নেতৃত্বের গুণাবলি ও জনপ্রিয়তার বিষয় উল্লেখ করে কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে পাঠাতে হবে। প্যানেল হাতে পাওয়ার পর কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড বৈঠক করে একজনকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে মনোনয়ন দেবে।

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন সোমবার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে। আগামী ২২ ডিসেম্বর ২০১৬ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

Advertisements