‘পারসন অব দ্য ইয়ার’ হলেন বসুন্ধরা এম‌ডি

    0
    2

    ডেস্ক নিউজ: ‘পারসন অব দ্য ইয়ার’ হয়েছেন বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীর।

    ১৭তম এবারের আসরে এশিয়া ওয়ান মিডিয়া গ্রুপের আয়োজনে যুক্তরাজ্যের লন্ডনে ম্যারিয়ট হোটেলে জমকালো অনুষ্ঠানে এসব সম্মাননা দেওয়া হয়।
    বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্প গ্রুপ বসুন্ধরাকে গ্রেটেস্ট ব্র্যান্ড হিসেবে বেছে নেওয়া হয় দেশের অর্থনীতিতে বিশেষ অবদান, ব্যবসা-বাণিজ্যে উৎকর্ষ সাধন ও মানোন্নয়নের জন্য। বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীরকে পারসন অব দ্য ইয়ার মনোনীত করা হয় ভোক্তা ও শিল্প পর্যায়ে বিশেষ অবদানের জন্য। আর তাঁকে মনোনীত করে ইউনাইটেড রিসার্চ সার্ভিসেস অ্যান্ড এশিয়াওয়ান ম্যাগাজিন।

    এদিকে বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফওয়ান সোবহানকে শিল্প ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান ও প্রতিনিধিত্বের জন্য মনোনীত করে এশিয়া ইউরোপ বিজনেস অ্যান্ড সোশ্যাল গ্রুপ। বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীরের পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন তাঁর উপদেষ্টা মো. নাজমুল হক।

    অনুষ্ঠানে প্রামাণ্যচিত্রের মাধ্যমে তুলে ধরা হয় বসুন্ধরা গ্রুপের নানা কার্যক্রম। আগত অতিথিদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয় গ্রুপের বিশেষ দিক এবং বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে।

    এতে স্থান পায় ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মকাণ্ড, বসুন্ধরা গ্রুপের শিল্প প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পণ্য, গুণগত মান ও মানবিক কার্যক্রম।
    মেগা এই শীর্ষ সম্মেলনটি পারস্পরিক কল্যাণ ও সহযোগিতার জন্য এই বৈশ্বিক প্ল্যাটফর্মে ইউরোপ, এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য এবং আফ্রিকার ব্যবসায়ী এবং সামাজিক নেতাদের একটি বিশাল সমাবেশে পরিণত হয়। কেউ কেউ আবার ভার্চ্যুয়ালি অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

    সম্মেলনে বাংলাদেশ, যুক্তরাজ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, জার্মানি, ভারত, সিঙ্গাপুর, দুবাই, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, চীন, মিয়ানমার, কম্বোডিয়া, ওমান, মালয়েশিয়া, মরক্কো, নাইজেরিয়া, কেনিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, সংযুক্ত আরব আমিরাতের ব্যবসায়িক ও সরকারি খাতের প্রধান ব্যবসায়ী ও সামাজিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন। তারা বিশ্বব্যাপী, বিশেষ করে ইউরেশীয়, উপসাগরীয় এবং আফ্রিকান অঞ্চলে অর্থনৈতিক সহযোগিতা, নেটওয়ার্কিং এবং বিনিয়োগের সুযোগের নতুন উপায় খুঁজে নেন।

    এশিয়াওয়ান মিডিয়া গ্রুপ ১৭তম এশিয়া-আমেরিকা-আফ্রিকা বিজনেস অ্যান্ড সোশ্যাল ফোরামের মধ্য দিয়ে মূলত ইউরোপ, এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য এবং আফ্রিকার উল্লেখযোগ্য সামাজিক ও অর্থনৈতিক অগ্রগতির অর্জন তুলে ধরা হয়েছে। পাশাপাশি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে সহযোগিতার বিভিন্ন উপায় নিয়ে আলোচনা করা হয়। একইসময়ে মধ্যপ্রাচ্য, দক্ষিণ এশিয়া, আফ্রিকা এবং ভারতীয় উপমহাদেশ থেকে সরকারি কর্মকর্তা, রাষ্ট্রদূত, ব্যবসার মালিক, বিনিয়োগকারী, রাজকীয় গণমান্য ব্যক্তি এবং পেশাদার, ইউরোপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে সিইও, সিএফও, সিটিও এবং সিএইচআরওসহ বিভিন্ন ব্যক্তি উপস্থিত ছিলেন।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here