আগামী তিন বছরে পর্যায়ক্রমে ১২ লাখ অভিবাসী নেওয়ার পরিকল্পনা করছে কানাডা সরকার। শ্রমবাজারের শূন্যতা পূরণ এবং কোভিড-১৯ এর ক্ষতি পুষিয়ে অর্থনৈতিকভাবে চাঙা হতে শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন দেশটির অভিবাসন বিষয়ক মন্ত্রী। খবর আল জাজিরার।

রাজধানীর অটোয়ায় অভিবাসন মন্ত্রী মার্কো মেনডিসিনো সাংবাদিকদের বলেন, কানাডা সরকার ২০২১ সালে ৪ লাখ ১ হাজার, ২০২২ সালে ৪ লাখ ১১ হাজার ও ২০২৩ সালে আরো ৪ লাখ ২১ হাজার স্থায়ী অভিবাসী নেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে।

‘কানাডায় আরো কর্মক্ষম লোক দরকার। আর সে লক্ষ্যে পৌঁছাতে প্রয়োজন অভিবাসন। মহামারি শুরুর আগে আমাদের সরকারের লক্ষ্য ছিল অভিবাসনের মাধ্যমে অর্থনীতিকে একটি উচ্চাকাঙ্ক্ষার জায়গায় নেওয়া। এখন সেটা আরো গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। ’

কানাডার অভিবাসন পদ্ধতি দীর্ঘদিন ধরে একটি মডেল। ঐতিহাসিকভাবে দেশটি দক্ষ কর্মী, শরণার্থী ও দেশটিতে থাকা ব্যক্তিদের পরিবারের সঙ্গে মিলিত হয়ে বসবাসের জন্য অন্য সদস্যদের সুযোগ দিয়ে আসছে।

কোভিড-১৯ এর কারণে মার্চ মাসে অভিবাসীদের জন্য অধিকাংশ সীমানা বন্ধ করে দেয়। রয়টার্সের রিপোর্ট অনুযায়ী, আগস্ট পর্যন্ত ১ লাখ ২৮ হাজার ৪২৫ জন দেশটিতে ঢুকতে পেরেছে, যা নির্ধারিত লক্ষ্যের চেয়ে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ কম।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, ২০২০ সালে কানাডার যে ৩ লাখ ৪১ হাজার অভিবাসী নেওয়ার কথা ছিল তার অর্ধেকের কম দেশটিতে প্রবেশ করতে পেরেছে।

করোনার কারণে নানা বিধিনিষেধ আরোপের ফলে কানাডার অভিবাসন প্রক্রিয়ায় নানা ধরনের বৈষম্য এবং দীর্ঘস্থায়ী সমস্যাও বাড়ছে।