৩৩ বছর বয়সী ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর জন্য ১০০ মিলিয়ন ইউরোরও বেশি খরচ করতে বাধেনি জুভেন্টাসের। কারণটা জানা, চ্যাম্পিয়নস লিগে সাফল্য পাওয়ার জন্য যে তাদের রোনালদোর মতো এক মহাতারকাকে দরকার। মহাদেশীয় এই টুর্নামেন্টে টানা সাতবার ১০ বা এর বেশি গোল করেছেন পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড। চ্যাম্পিয়নস লিগের জন্য দুই দশকের বেশি অপেক্ষার শেষ চাওয়া এক দলের জন্য রোনালদোকে পাওয়াটা অনেক বড় এক ব্যাপার।

এর উল্টো দশা হওয়ার কথা রিয়াল মাদ্রিদের। গত পাঁচ বছরে রিয়াল মাদ্রিদের চারটি চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ের প্রত্যক্ষ অবদান রোনালদোর। এ চার মৌসুমে ৪৯ ম্যাচে ৬০ গোল তাঁর! ৯ মৌসুমে ১০১ ম্যাচে ১০৫ গোল করা এক ফরোয়ার্ডের অভাব কীভাবে পূরণ করবে রিয়াল? এ মৌসুমে তাই চ্যাম্পিয়নস লিগের সবচেয়ে সফলতম দলটিকে একটু পিছিয়ে রাখছেন অনেকে। তবে দানি আলভেজ এটা মানতে রাজি নন। ব্রাজিলিয়ান ফুলব্যাকের দাবি, রোনালদোকে বিক্রি করে দেওয়া রিয়াল আগের চেয়ে বেশি ভয়ংকর!

রোনালদোকে ছাড়া লিগের শুরুটা খারাপ হয়নি রিয়ালের। অ্যাথলেটিক বিলবাওর মাঠে ড্র করার আগে তিন ম্যাচে জয় পেয়েছে হুলেন লোপেতেগির দল। এ ছাড়াও নতুন রিয়াল আগের তুলনায় অনেক বেশি পাসিং ফুটবল খেলছে, প্রেসিংয়ে মনোযোগ দিচ্ছে দলের সব আউটফিল্ড খেলোয়াড়ই। পিএসজির রাইটব্যাক তাই এই মাদ্রিদকেই বেশি ভয় পাচ্ছেন, ‘অন্যদের মতো সঙ্গে আমি একমত নই (মাদ্রিদ আগের মতো শক্তিশালী নয়)। ক্রিস্টিয়ানোকে ছাড়া মাদ্রিদ আরও বেশি দল হয়ে উঠেছে। আগের তুলনায় ওরা এখন আরও বেশি কঠিন। আগেও ওরা শক্তিশালী ছিল কিন্তু ক্রিস্টিয়ানোর ওপরের সব আলো থাকত। আমি যেভাবে ফুটবলকে দেখি এবং এ খেলা নিয়ে আমার ভাবনা অনুযায়ী এখন ওরা অনেক বেশি বিপজ্জনক।’

এর মানে এ নয় যে রোনালদোকে মাদ্রিদ মিস করবে না। এ প্রজন্মের সেরা দুই খেলোয়াড়ের অভাব পূরণ করা সহজ নয়। এটা মানেন আলভেজ। কিন্তু রোনালদোকে হারিয়েও ভালো খেলার ক্ষমতা মাদ্রিদ রাখে বলেই মনে করেন ব্রাজিলের এই তারকা, ‘মাদ্রিদকে হারানো সহজ হবে না। ওরা এখন অনেক বেশি দল হিসেবে খেলে। এটা অনস্বীকার্য যে ক্রিস্টিয়ানোকে হারানো মাদ্রিদের জন্য অনেক বড় ক্ষতি কিন্তু মাদ্রিদ তো মাদ্রিদ!’