‘নেইমার ব্রাজিলকে তৃপ্তি দিয়েছেন কিন্তু আর বিশ্বকে বিরক্ত করেছেন’- এ শিরোনামটিই ব্যবহার করেছেন খোদ ব্রাজিলের পত্রিকা গ্লোবো। নেইমার কি আসলেই নাটক করেন?
শিরোনামটিই ব্যবহার করেছেন খোদ ব্রাজিলের পত্রিকা গ্লোবো। পত্রিকাটি মাঠে নেইমারের ‘কাণ্ডকারখানা’র কয়েকটি ছবি দিয়ে এমনটাই বলেছে।
তাদের মতে, ‘নেইমারের কীর্তি ছিলো নিখুঁত কিন্তু বিরক্তিকর’।
যদিও এ মূহুর্তে বিশ্বের সবচেয়ে দামী খেলোয়াড়টির নাম নেইমার আর কোন তর্ক ছাড়াই বলতে হয় লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর বিদায়ের পর বিশ্বকাপে টিকে থাকা একমাত্র সুপারস্টার।
পারফরমেন্সের কারণেই সোমবারের খেলায় তিনিই ছিলেন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এমনকি দলের ২-০ গোলের দারুণ বিজয়েও তার অবদানই বেশি।
তারপরেও নিরপেক্ষ বিশ্লেষকদের মধ্যে এখনো মোটেও জনপ্রিয় নন নেইমার।
তবে দলের জয়ে অসাধারণ অবদান তারই। বল নিয়ে কসরত দেখিয়ে জায়গা বের করা দেখিয়েছেন তিনি। গতির সাথে স্কীল, বুদ্ধিমত্তার সাথে পেছনে পাস দেয়ার মাধ্যমে প্রথম গোলটির ক্ষেত্র তিনিই তৈরি করেছেন সোমবার সন্ধ্যায়।
কিন্তু সেখানে কিছুটা বিরক্তিও আর নাটকও ছিলো যদিও এটা হতে পারে সামান্য সুবিধা আদায়ের চেষ্টা যা সত্যিই ফুটবল মূল্যবোধের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ বলে অনেকে মনে করেন।