সড়ক দুর্ঘটনারোধে ব্যর্থতা অকপটে স্বীকার করে নিয়েছেন সড়ক যোগাযোগ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তবে এজন্য অদক্ষ চালকদের পাশাপাশি ট্রাফিক আইন না মানার ক্ষেত্রে রাজনীতিসংশ্লিষ্টদের দায়ী করেছেন তিনি। আক্ষেপের সুরে তিনি বলেছেন সাধারণ মানুষ আইন মানতে চায় কিন্তু রাজনীতিতে জড়িত ‘অসাধারণ’ মানুষরাই আইন মানতে চান না। সড়ক পরিবহনে শৃঙ্খলাও এখনও আনা সম্ভব হয়নি বলে স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি।

সোমবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে নিজ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন সাফল্য উল্লেখের পাশাপাশি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ দায় স্বীকার করে নেন তিনি।

এ সময় তিনি বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়ে বিভিন্ন বিষয়ে সফলতা পেলেও দুর্ঘটনা রোধসহ সড়ক পরিবহনে এখনও শৃঙ্খলা আনতে পারিনি। আগের বছরের চেয়ে এ বছর দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা কম হলেও এবারের ঈদে মৃত্যুর মিছিল দেখা গেছে। দুর্ঘটনায় পাখির মতো মানুষ মারা গেছে। এত মৃত্যুতে আমি নিজেও অবাক হয়েছি।’

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, চালকদের বেপরোয়া গাড়ি চালানো আমরা বন্ধ করতে পারিনি। পরিবহনগুলোতে দক্ষ চালকের চেয়ে অদক্ষ চালকই বেশি। মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হিসেবে এর ব্যর্থতার দায় আমি এড়াতে পারি না। তবে আমরা বসে নেই। দুর্ঘটনারোধসহ সড়ক পরিবহনে শৃঙ্খলা আনতে চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। এসময় তিনি জানান, দুর্ঘটনাপ্রবণ ১৪৪টি স্পট চিহ্নিত করে সেগুলো চওড়াকরণ ও ডিভাইডার নির্মাণ করা হচ্ছে। এছাড়া দেশের সব মহাসড়কে অযান্ত্রিক যান ও কম গতির গাড়ির জন্য আলাদা সার্ভিস লেন করা হবে বলে তিনি জানান।

এ সময় ট্রাফিক আইন মানার বিষয়ে তিনি কিছুটা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সাধারণ মানুষকে আইন মানানো গেলেও ‘অসাধারণ’ মানুষদের আইন মানানো যায় না। আমরা যারা সাধারণ মানুষ তারা ট্রাফিক আইন মানলেও যারা রাজনীতি করি ও ‘অসাধারণ’ মানুষ তাদের আইন মানানো দুঃসাধ্য।

তিনি বলেন, হেলমেটবিহীন ও ৩ জন নিয়ে কোনও বাইকচালককে জিজ্ঞাসা করলে দেখবেন তারা কোনও না কোনও রাজনৈতিক দলের কর্মী। আইন না মানার এই প্রবণতা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে।