মনে-প্রাণে চট্টগ্রামের উন্নয়ন চান উল্লেখ করে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, আমি চট্টগ্রামের উন্নয়নে বরাদ্দ দেয়ার জন্য এগিয়ে আছি। এই চট্টগ্রামের উন্নয়নে অনেক প্রকল্প বরাদ্দ দেয়া আছে। প্রধানমন্ত্রী এই চট্টগ্রামকে অকৃত্রিম ভালোবাসেন। এই নগরীর পানি সমস্যা নিরসনে বর্তমান সরকার ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। যার সুফল ইতোমধ্যে পেতে শুরু করেছে নগরবাসী। চট্টগ্রাম বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শহর। এই শহরকে সমৃদ্ধির জায়গায় নিয়ে যেতে স্যুয়ারেজ প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়েছে। এই প্রকল্পের পুরোটাই সরকার দিচ্ছে (জিওবি ফান্ড)। এটা চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্যই দিচ্ছেন। তারই ধারাবাহিকতায় আগামীতে চট্টগ্রাম ওয়াসায় আরো ৫টি প্রকল্প গ্রহণ করা হবে, যার প্রতিটির প্রকল্প ব্যয় হবে ৪ থেকে ৫ হাজার কোটি টাকা।
গতকাল শনিবার দুপুরে রেডিসন ব্লু’র মেজবান হলে চট্টগ্রাম ওয়াসার পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থা প্রকল্পের (১ম পর্যায়) পরামর্শক নিয়োগের চুক্তিস্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম এসব কথা বলেন।
সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের নেতৃত্বে আগামীতে এই চট্টগ্রামের বড় ধরনের পরির্বতন আসবে এবং এটা হওয়া উচিত মন্তব্য করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, ব্যক্তিগতভাবে আমি আপনাকে পছন্দ করি। চট্টগ্রাম শহরকে আধুনিক নগর গড়তে আপনি অনেক কাজ করেছেন। আপনার কাজের প্রতি আমার পুরো সমর্থন রয়েছে। আগামীর উন্নত চট্টগ্রাম গড়তে আপনাকে প্রস্তুত থাকতে হবে। আপনার এখনো যৌবন সময়। চট্টগ্রামকে দৃষ্টিনন্দন করার জন্য উদ্যোগ নেন। পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন-সড়ক-পরিবহন ও ট্রাফিক ব্যবস্থার উন্নয়নে উদ্যোগ গ্রহণ করুন। আপনাকে সহযোগিতা করতে আমার ভালো লাগে। আমি যেহেতু এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী। তাই চট্টগ্রামের ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আমি বুঝিয়েছি। এখানের উন্নয়নের জন্য ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী বেশ কিছু প্রকল্প হাতে নিয়েছেন। ১৭শ’ কোটি টাকার একটি প্রকল্প দেয়া আছে। এটা পানি উন্নয়ন বোর্ড করবে।
মন্ত্রী বলেন, মানুষের কাছে নিরাপদ পানি সরবরাহ করা বড় চ্যালেঞ্জ। শুধু শহর নয় গ্রাামে ও সুপেয় পানি পৌঁছে দেওয়া সরকারের বড় চ্যালেঞ্জ। বাংলাদেশের মানুষের আয় বাড়ছে, আগামীতে আরও বাড়বে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে আমাদের নিতে হবে ব্যাপক প্রস্তুতি। টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হলে আমাদের উন্নয়ন কার