৯ বছরের ব্যবধানে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদনের পার্থক্য ছয় হাজার ৮১৬ মেগাওয়াট।

0
6

আওয়ামী লীগ সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর দেশে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়েছিল ২০০৯ সালের ৬ জুন। সেই বিদ্যুতের পরিমাণ ছিল তিন হাজার ২৬৮ মেগাওয়াট। এরপর প্রতিবছরই দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন বেড়েছে। সর্বশেষ ২০১৮ সালের ১৯ মার্চে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদন হলো ১০ হাজার ৮৪ মেগাওয়াট। অর্থাৎ ৯ বছরের ব্যবধানে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদনের পার্থক্য ছয় হাজার ৮১৬ মেগাওয়াট।
এ দুই সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদনের তুলনামূলক চিত্রই বলে দিচ্ছে বিদ্যুৎখাতের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রয়েছে। একইসঙ্গে দেশজুড়ে কমে গেছে লোডশেডিং দুর্বিষহ যন্ত্রণা। যদিও মাঝে মধ্যে বিতরণ ত্রুটিতে ভুগছেন গ্রাহক। তবে বিদ্যুতের জন্য হাহাকার আর নেই। রাজধানীর সব এলাকায় যেখানে প্রতি ঘণ্টায় লোডশেডিং হতো, সেই অবস্থা অনেক এখন অনেক সহনীয় পর্যায়ে এসেছে। শিল্পের মারাত্মক সংকটও আর নেই। গত কয়েক বছর ধরে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রবৃদ্ধি আশাব্যঞ্জক বলেই মত সংশ্লিষ্টদের।
বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, বিদ্যুৎ খাতে উন্নয়নের আরও জায়গা রয়েছে। গ্রীষ্মে বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় লোড ম্যানেজমেন্ট করতে হয়। তবে এ বছরের যে প্রক্ষেপণ তাতে বলা হচ্ছে, বিগত বছরের মতো বিদ্যুৎ আর ভোগাবে না। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের সঙ্গে স্বল্প উৎপাদন ব্যয় যোগ করে টেকসই উন্নয়নের ওপর জোর দেন তারা।
আসছে গ্রীষ্মের সম্ভাব্য পরিস্থিতি নিয়ে পিডিবির সদস্য (উৎপাদন) সাঈদ আহমেদ বলেন, ‘চাহিদার ওপর নির্ভর করে আমরা উৎপাদন বৃদ্ধি করছি। এপ্রিলে ৮০০ মেগাওয়াটের তেলচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্র উৎপাদনে আসবে। এছাড়া একই সময়ে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আসলে আরও ৪০০ থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। এপ্রিল ও মে মাসজুড়ে কমপক্ষে এক হাজার ২০০ মেগাওয়াট উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে।’ এতে করে গ্রীষ্মে সরবরাহ স্বাভাবিক থাকবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
পিডিবির ওয়েব সাইট বলছে,গত ১৫ মার্চে দেশে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৯ হাজার ৭১৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়েছে। এছাড়া গত বছরের ১৮ নভেম্বর বিদ্যুৎ উৎপাদন ওই বছরের সর্বোচ্চ ছিল—৯ হাজার ১১ মেগাওয়াট। এর আগের বছর অর্থাৎ ২০১৬ সালের ৩০ জুন সাত হাজার ৪৮৫ মেগাওয়াট সর্বোচ্চ উৎপাদন হয়েছে।
সরকারের তরফ থেকে বলা হচ্ছে, দেশের প্রতিটি ঘরে পর্যায়ক্রমে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার কাজ শেষ করা হবে ২০২১ সাল নাগাদ। এ জন্য বিদ্যুতের উৎপাদন যা-ই হোক না কেন প্রতিমাসেই নতুন তিন থেকে সাড়ে তিন লাখ সংযোগ দেওয়া হচ্ছে। এভাবে প্রতিমাসে নতুন গ্রাহক যুক্ত হওয়ায় সংকট সৃষ্টি হলেও তা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব বলে মনে করা হচ্ছে।
বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন,‘সবার ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার অঙ্গীকার নিয়ে সরকার কাজ করছে। কেউ বিদ্যুৎ পাবেন আর কেউ পাবেন না— এটা হতে পারে না। এজন্য উপজেলাভিত্তিক শতভাগ বিদ্যুতায়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে সরকার।’
তিনি বলেন, ‘দ্রুত চাহিদা বাড়ছে। শহরে বিদ্যুৎ চাহিদার গড় প্রবৃদ্ধি ২০ ভাগের কাছাকাছি। সরকার চাহিদা মাথায় রেখে নতুন নতুন প্রকল্প হাতে নিচ্ছে।’
পরিসংখ্যান বলছে, বিগত নয় বছরে বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নের জন্য সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে নতুন ৮৮টি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। আর এ সময়ে অবসরে গেছে মাত্র তিনটি কেন্দ্র। ২০০৯ সালে দেশে বিদ্যুৎকেন্দ্রের সংখ্যা ছিল মাত্র ২৭টি আর এখন বিদ্যুৎকেন্দ্রের সংখ্যা ১১২টি।
পাওয়ার সেল গত মঙ্গলবার (৩ এপ্রিল) যে হিসাব দিয়েছে, তাতে দেখা যায়, ২০০৯ সালে দেশে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর উৎপাদন ক্ষমতা ছিল চার হাজার ৯২৪ মেগাওয়াট। এখন ক্যাপটিভসহ যা ১৬ হাজার ৪৬ মেগাওয়াটে দাঁড়িয়েছে। ওই সময় বিদ্যুতের সুবিধা পেতো ৪৭ ভাগ জনগণ। এখন তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮৩ ভাগে।

Advertisements