বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসে সৌদি আরবসহ পুরো বিশ্ব আজ বিপর্যস্ত। স্বাস্থ্য, অর্থনৈতিক, সামাজিক জীবনের পাশাপাশি ধর্মীয় জীবনের উপরেও প্রভাব ফেলেছে এই প্রাণঘাতী ভাইরাস। এবছর বিশ্বের মুসলিম উম্মাহর সবচেয়ে বড় ধর্মীয় সম্মেলন হজ ইতিমধ্যেই সীমিত পরিসরে আয়োজনের ঘোষণা করেছে সৌদি আরব সরকার। তবে সীমিত পরিসরে হজ হলেও এ বছর হজে পবিত্র কাবা ঘর ছোঁয়া বা চুমু খাওয়া সম্পুর্ন নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

গতকাল সোমবার সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা সৌদি প্রেস এজেন্সির (এসপিএ) এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে এবারের হজে বেশকিছু স্বাস্থ্যবিধি ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। এর মধ্যে রয়েছে- যদি কাউকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহ করা হয়, তবে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শেই তাকে হজ পালন করতে দেওয়া হবে। তার আগে তাকে আলাদা বাড়িতে রাখা হবে এবং যাতায়াতও আলাদা করার ব্যবস্থা করা হবে।

কাবা শরীফে কর্মরত শ্রমিক ও হজ পালনকারীদের মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে সচেতন করা হবে।

নামাজ পড়ার সময় নামাজিদের মুখে মাস্ক থাকতে হবে এবং একজন থেকে আরেকজনের মধ্যে দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। খাদ্য, পানি পান ও যানবাহন ব্যবহারেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এ ছাড়া মক্কার গ্রান্ড মসজিদের কাবা বা কালো পাথর ছোঁয়া ও চুমু দেওয়া নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কাবা প্রদক্ষিণকালে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৩০ জুলাই পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।