পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার জবাবে সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তানের দখলে থাকা কাশ্মীরি ভূখণ্ডে ঢুকে জঙ্গিগোষ্ঠী জয়েশ-ই-মোহাম্মদের আস্তানায় অভিযান পরিচালনার দাবি করেছে ভারতীয় বিমান বাহিনী। তাদের এই হামলার পর ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের কানাচক সীমান্তে অস্ত্রবিরতি লঙ্ঘন করে পাল্টা গোলাবর্ষণ করেছে পাকিস্তানের সীমান্তরক্ষী বাহিনী পাক রেঞ্জার্স।
মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ভোর সাড়ে ৩টার দিকে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতীয় বিমানবাহিনীর ২১ মিনিটের অভিযানে সন্দেহভাজন ৩০০ ‘জঙ্গি’ নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে ভারত। তবে তাদের এই দাবি প্রত্যাখ্যান করে পাকিস্তান বলছে, ভারতের বিমান হামলায় কোনো হতাহত কিংবা ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।
ইন্ডিয়া ট্যুডে বলছে, সীমান্ত রেখার পাশে পাকিস্তানের ভেতরে ভারতীয় বিমান বাহিনী জঙ্গি আস্তানা গুঁড়িয়ে দেয়ার পর জম্মুর কানাচক সীমান্তে অস্ত্রবিরতি লঙ্ঘন করেছে পাক রেঞ্জার্স। তবে ভারত এই যথাযথ জবাব দিয়েছে বলে দাবি করেছে দেশটির সেনাবাহিনী।
এদিকে, পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতীয় হামলার পর ভারতের সব বিমানবন্দরে উচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ভারতীয় বিমান বাহিনীর আকস্মিক হামলার পর জরুরি বৈঠক তলব করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার জন্য দেশটির শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠকে বসেছেন তিনি।
এর আগে সকালের দিকে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতীয় বিমানবাহিনীর হামলার পর সেখানকার বর্তমান পরিস্থিতি পর্যালোচনার জন্য জরুরি বৈঠক ডাকেন। বৈঠকে পাকিস্তানের সাবেক সচিব ও রাষ্ট্রদূতরা অংশ নেন।