২০১৬ এশিয়া কাপ ছিলো টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের প্রথম টুর্নামেন্ট।

আসরটি শুরু হয় ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে, শেষও হয় ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচ দিয়ে।

৬ই মার্চ, ২০১৬। ম্যাচ শুরুর নির্ধারিত সময় ছিল বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা।

কিন্তু তখন ঢাকার মিরপুর শের এ বাংলা স্টেডিয়ামে ঝড়ো হাওয়া সহ বৃষ্টি চলছে মুশলধারে।

স্টেডিয়ামের চারিদিকে বৃষ্টির সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে ক্রিকেট ভক্তদের ভীড়।

বৃষ্টি থামে সাতটা চল্লিশ মিনিটে। তখন থেকে কাজ করা শুরু করেন গ্রাউন্ডসম্যানরা।

তদারকিতে ছিলেন প্রধান গ্রাউন্ডসম্যান গামিনি সিলভা।

দমকা হাওয়া ও বৃষ্টি পুরো খেলার পরিবেশ এতোটাই নাড়িয়ে দেয় যে ফ্লাডলাইটেও কিছুটা সমস্যা দেখা দেয়।

তবে শের এ বাংলা স্টেডিয়ামের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা দুর্দান্ত। কিছুক্ষণের মধ্যেই উইকেট ও উইকেটের চারিপাশের আবরণ তুলে নেয়া হয়।

৮টা ৩৫ মিনিটে জানানো হয় ৮টা ৪৫ মিনিটে মাঠে পর্যবেক্ষণে নামবেন আম্পায়াররা।

শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত হয় ৯টা বাজে হবে টস ও খেলা শুরু হবে ঠিক ৩০ মিনিট পর।

ম্যাচের দৈর্ঘ্য নির্ধারিত হয় ১৫ ওভার।

৯ টা বেজে ১০ মিনিটে ভারতের অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি ও বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা টস করতে নামলে উপস্থিত দর্শকরা তুমুল করতালিতে স্বাগত জানান।

টস জিতে ধোনি ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে জানান ছোট সংস্করণে রান তাড়া করা সবসময় সহজ।

ব্যাটিংয়ে নেমে চতুর্থ ওভারের শেষ বলে ২৭ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। সৌম্য সরকার ১৮ বলে ১৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন।

পরের ওভারেই তামিম ইকবাল জাসপ্রিত বুমরার বলে এলবিডব্লিউ আউট হন।

সাকিব ও সাব্বিরের ৩৪ রানের জুটি রান রেট বাড়ানোর চেষ্টা করলেও দশম ওভারে সাকিব আউট হয়ে যান অশ্বিনের বলে।

সাকিব করেন ১৮ বলে ২১ রান।

দ্বাদশ ওভারে রবীন্দ্র জাদেজা পরপর দুই বলে মুশফিকুর রহিম ও মাশরাফি বিন মুর্তজাকে প্যাভিলিয়নে ফেরান।

পরবর্তী ৩ ওভার ২ বলে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও সাব্বির রহমান রানের গতি বাড়ান।

রিয়াদ ২ ছক্কা ও ২ চারে ১৩ বলে ৩৩ রান তোলেন।

সাব্বির অপরাজিত থাকেন ৩২ রানে।

বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১২০ রান ১৫ ওভার শেষে।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দ্বিতীয় ওভারেই রোহিত শর্মার উইকেট হারায় ভারত।

এরপর ভিরাট কোহলি ও শেখর ধাওয়ান ৯৪ রানের জুটি গড়ে ম্যাচ ভারতের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।

ধাওয়ান ৪৪ বলে ৬০ রান তোলেন। ভিরাট ২৮ বল খেলে ৪১ রান তোলেন।

শেষদিকে অধিনায়ক ধোনি ৬ বলে ২০ রানের ক্যামিও ইনিংসে ভারতের টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের এশিয়া কাপ জয় নিশ্চিত করেন।

এই টুর্নামেন্টের সেরা ক্রিকেটার হন সাব্বির রহমান।