এই ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’ এর আগেও ডাকসুর ভিপির কক্ষে তালা দিয়েছে। দৈনিক সংগ্রাম অফিসে ভাংচুর চালিয়েছে, সম্পাদককে হেনস্থা করেছে। গত ১৭ ডিসেম্বর তারা ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরের প্রতিবাদী মানববন্ধনে হামলা চালিয়েছে। বারবার আইন হাতে তুলে নিয়ে, হামলা চালিয়ে পার পেয়ে তারা দানব হয়ে গেছে। বারবার দাবি সত্বেও তাদের কোনো বিচার তো হয়ইনি, বরং সংগ্রাম অফিসে হামলা চালিয়ে, ডাকসু ভিপিকে মেরে তারা কারো কারো বাহবা পেয়েছে। আরো বড় বাহবার আশায় তারা সরকারের আরো বেশি ক্ষতি করছে। রোববার দুপুরে তারা ছাত্রলীগের সহায়তায় ডাকসু ভবনে ‘বর্বর ও পৈশাচিক’ (আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানকের ভাষায়) হামলা চালাতে পেরেছে। হামলায় আহত অন্তত ২৫ জন ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসা নিয়েছে, নুরসহ ৭ জন ভর্তি আছে। তাদের মধ্যে একজন লাইফ সাপোর্টে, একজন আইসিইউতে। এই হামলার তীব্র নিন্দা শুধু নয়, হামলার সাথে জড়িত প্রত্যেককে গ্রেপ্তারের দাবি জানাচ্ছি। আর আমাদের অতি আবেগের জায়গা ‘মুক্তিযুদ্ধ’ শব্দটিকে অবমাননার হাত থেকে রক্ষায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নিষিদ্ধ করার দাবি জানাচ্ছি।
লেখকঃপ্রবাশ আমিন।