বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার ম্যাচটা নিয়ে আগ্রহ ছিল এমনিতেও। ম্যাচের শুরুতেই উত্তেজনা বাড়িয়ে দিলেন লাসিথ মালিঙ্গা। এক বছর পর ওয়ানডে ক্রিকেটে ফিরেই তাণ্ডব চালিয়েছেন এই স্লিংঙ্গিং পেসার। এতেই ১৪তম এশিয়া কাপের শুরুতে বাংলাদেশকে প্রায় ১৪ বছর ভুলে থাকা এক দুঃস্বপ্ন উপহার দিল শ্রীলঙ্কা।

প্রথম ওভারের পঞ্চম বলে স্লিপে ক্যাচ দিয়েছেন লিটন দাস। পরের বলেই দুর্দান্ত এক বলে বোল্ড সাকিব আল হাসান। প্রথম ওভারে ১ রানে ২ উইকেট হারিয়ে ফেলল বাংলাদেশ! এশিয়া কাপের ওয়ানডে সংস্করণে এই প্রথম ইনিংসের প্রথম ওভারেই দুই উইকেট পড়ল। ২০১৬ সালের এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টিতে অবশ্য এ ঘটনা দুবার ঘটেছে।

ইনিংসের প্রথম ওভারেই দুই উইকেট হারিয়ে ফেলার এমন ঘটনা নিকট অতীতে ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে কখনো পেতে হয়নি। সর্বশেষ প্রথম ওভারেই দুই ব্যাটসম্যান ফিরে গেছেন এমন ঘটনা ঘটেছিল ২০০৪ সালে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৫ নভেম্বরের সে ম্যাচে নাফিস ইকবালের পর আফতাব আহমেদও প্রথম ওভারেই ফিরে গিয়েছিলেন। ওয়ানডেতে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ইনিংসে ৫ উইকেট পাওয়ার কীর্তি গড়ে সেদিন দুঃখ ভুলেছিলেন আফতাব। এরপর ওয়ানডেতে অন্তত প্রথম ওভারে দুই ব্যাটসম্যান হারায়নি বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ ২০০৪ সালে আরও একবার এমনভাবে প্রথম দুই উইকেট হারিয়েছিল। কিংসটনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১৫ মের ওয়ানডেতে প্রথম ওভারে কোনো রান তোলার আগেই দুই উইকেট হারিয়েছিল বাংলাদেশ। তবে প্রথমবার এমন কিছু হয়েছিল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। ২০০৩ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশকে পেয়ে রীতিমতো তছনছ করে দিয়েছেন চামিন্ডা ভাস। প্রথম ওভারেই ৫ রানের মধ্যে ৪ উইকেট হারিয়েছিল বাংলাদেশ! এর মাঝে প্রথম তিনজন তো হ্যাটট্রিকের শিকার হয়েছেন প্রথম তিন বলেই!

বাংলাদেশের দুঃস্বপ্নের স্মৃতিটা ১৪ বছর পুরোনো হলেও সাকিবের রেকর্ডের বয়স মাত্র ৪ বছর। ওয়ানডেতে ৪৫ ইনিংস পর গোল্ডেন ডাক পেলেন সাকিব আল হাসান। এই অলরাউন্ডার সর্বশেষ প্রথম বলে আউট হয়েছিলেন ২০১৪ সালের ২৩ নভেম্বর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। মাঝের ১৩৯২ দিনে আর একবার শূন্য রানে ফিরেছেন সাকিব। সেদিনও তিনে ব্যাট করেছিলেন সাকিব। সেটাও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একই সিরিজে ঘটেছিল। সেদিন ৮ বল খেলেও কোনো রান করতে পারেননি সাকিব। দুই গোল্ডেন ডাকের মাঝে ১৪৯৭ রান করেছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।